Mohammad Haris: “বাচ্চাদের পাঠাতে কেউ বলেনি…” ভারতকে এশিয়া কাপে হারিয়ে হুঙ্কার পাকিস্তানি ক্যাপ্টেনের !!

Mohammad Haris: পাকিস্তান ‘এ’ ফাইনালে ভারত ‘এ’ কে ১২৮ রানে পরাজিত করে এসিসি পুরুষদের (ACC Men’s) দল এশিয়া কাপের শিরোপা জিতেছে। এই টুর্নামেন্টে সাতজন খেলোয়াড়ের আন্তর্জাতিক অভিজ্ঞতা ছিল এবং এমন একটি আরও অভিজ্ঞ দল ফিল্ডিং-এর জন্য কিছু ভক্ত পাকিস্তানের সমালোচনা করেছেন। অন্যদিকে, ভারত ‘এ’ দলের কোনো খেলোয়াড় আন্তর্জাতিক পর্যায়ে দেশের প্রতিনিধিত্ব করেননি। পাকিস্তান ‘এ’ দলের অধিনায়ক মহম্মদ হারিস (Mohammad Haris) সমালোচকদের প্রতি ক্ষুব্ধ হয়ে বলেছেন যে, ভারতকে এই টুর্নামেন্টে তাদের তরুণদের দল নিয়ে মাঠে নামতে বলা হয়নি এবং তার বেশিরভাগ সতীর্থরা টুর্নামেন্টের আগে মাত্র কয়েকটি টি-টোয়েন্টি খেলেছে। বিস্তারিত জেনে নিন Kheladhular Jogot-এর এই প্রতিবেদনে।

“লোকেরা বলছেন পাকিস্তান অনেক সিনিয়রদের নিয়ে ‘এ’ দল পাঠিয়েছে। আমরা তাদের ছোট বাচ্চাদের টুর্নামেন্টে পাঠাতে বলিনি। তারা বলে যে আমাদের দলে আন্তর্জাতিক অভিজ্ঞতা ছিল। আমরা কতটা আন্তর্জাতিক ম্যাচ খেলেছি? কিন্তু সাইম খেলেছেন ৫ টি, আমি ৬ টি খেলেছি। ঠিক সেই ছেলেরা তথা ভারতীয় খেলোয়াড়রা ২৬০ টি আইপিএল ম্যাচ খেলেছে,” হারিস বলেছেন জি নিউজে। বোর্ড অফ কন্ট্রোল ফর ক্রিকেট ইন ইন্ডিয়া (BCCI) এই আট দলের টুর্নামেন্টের জন্য যে দলটি বেছে নিয়েছিল তাতে আনক্যাপড খেলোয়াড়দের অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছে যারা ইন্ডিয়ান প্রিমিয়ার লিগে (IPL) বা ঘরোয়া পর্যায়ে ভালো করেছে। যশ ধুল (Yash Dhull) যিনি মাত্র চারটি আইপিএল ম্যাচ খেলেছেন সেই দলের নেতৃত্ব দেওয়ার জন্য বেছে নেওয়া হয়েছিল যার গড় বয়স ২০ বছর। অন্যদিকে, পাকিস্তান “এ” দলের গড় বয়স ছিল ২৩.২০। পাকিস্তান দল-এর নেতৃত্বে ছিলেন মোহাম্মদ হারিস (Mohammad Haris), যিনি গত মে মাসে ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে তার ১৪টি আন্তর্জাতিক ম্যাচ খেলেছিলেন।

ভারত এ টুর্নামেন্টের গ্রুপ পর্বে অভিজ্ঞ পাকিস্তান এ দলকে হারিয়েছে:- পাকিস্তান ‘এ’দল সম্মিলিতভাবে জাতীয় দলের হয়ে ৮৫টি ম্যাচ খেলেছে। পাকিস্তান দলের অলরাউন্ডার মোহাম্মদ ওয়াসিম জুনিয়র এই টুর্নামেন্টে পাকিস্তান দলে সবচেয়ে বেশি অভিজ্ঞ সদস্য ছিলেন, তিনি দুটি টেস্ট, ১৪ টি ওয়ানডে এবং ২৭ টি টি-টোয়েন্টি খেলেছেন। ভারত ‘এ’ টুর্নামেন্টে একটি ভালো পরিবর্তন আনতে সক্ষম হয়েছিল কারণ তারা ফাইনালে পৌঁছনো পর্যন্ত অপরাজিত ছিল। গ্রুপ পর্বে, তারা পাকিস্তানকে পরাজিত করে, আট উইকেট এবং ৮০ বল বাকি রেখে সফলভাবে ২০৬ রানের লক্ষ্য তাড়া করে।

সমস্ত বিতর্ককে একপাশে রেখে, এটি অবশ্যই উল্লেখ করা উচিত যে এসিসি ইমার্জিং এশিয়া কাপ ২০২৩ (ACC Emerging Asia Cup 2023) টুর্নামেন্ট অবশ্যই অনেক প্রতিভাবান তরুণদের তাদের দক্ষতা প্রদর্শন করতে এবং তাদের দক্ষতা প্রমাণ করতে সহায়তা করেছিল। যে খেলোয়াড়রা প্রকাশ পেয়েছে তারা অবশ্যই অনেক কিছু শিখেছে এবং ভবিষ্যতে এটি তাদের এবং তাদের দেশের জন্য মঙ্গলজনক হবে।

Shikhar Dhawan: গিল নয় রোহিত শর্মার সঙ্গে ওপেনিং করতে দেখা যাবে শিখর ধাওয়ানকে, উঠে আসলো বড় আপডেট !!

Leave a Comment