দাম সাড়ে ৪ লক্ষ, অত্যাধুনিক প্রযুক্তিতে তৈরি, কি কি বিশেষত্ব রয়েছে বিশ্বকাপে রেফারিদের ঘড়িতে ?

WhatsApp Group Join Now
Google News Follow

যে কোন ফুটবল ম্যাচে রেফারিদের সবথেকে গুরুত্বপূর্ণ জিনিস হল তাদের হাতের ঘড়ি। রেফারিদের যেমন লাল কার্ড বা হলুদ কার্ড গুরুত্বপূর্ণ, ঠিক তেমনি খেলা চলাকালীন বাম হাতের ঘড়িটাও প্রধান হয়ে ওঠে। আগেকার দিনে শুধুমাত্র সময় দেখার জন্যই রেফারিরা ঘড়ি পড়তেন, কিন্তু সেই ঘড়ির কাজ এখন অনেকটাই বদলে গিয়েছে। প্রযুক্তিগত ভাবে রেফারিদের ঘড়ি উন্নত করা হয়েছে।

যারা বিশ্বকাপে রেফারিং করেন, তাদের হাতের ঘড়ির কি বিশেষত্ব আপনি কি জানেন? কী এই ঘড়ি? তার মধ্যে কী প্রযুক্তি আছে? আসুন আমরা আপনাকে এই প্রতিবেদনে বিস্তারিত ভাবে বলবো। এবারের ফুটবল বিশ্বকাপে(Qatar World Cup 2022) মোট ১২৯ জন ম্যাচ পরিচালক আছে। যার মধ্যে আছে ৩৬ জন রেফারি, সহকারি রেফারী আছেন ৬৯ জন এবং ভার রেফারি ২৪ জন আছে। এদের মধ্যে মহিলা রেফারি ৬ জন আছেন। আপনি কি জানেন এই বিশেষ ঘড়ি প্রত্যেক রেফারিকেই দেওয়া হয়েছে। বিগত কয়েক বছর ধরেই সুইৎজ়ারল্যান্ডের সংস্থা হাবলট রেফারিদের ঘড়ি সরবরাহ করে আসছেন।

যেসব দামি স্মার্টওয়াচ বর্তমানে পাওয়া যায়, তার থেকেও বেশি প্রযুক্তি রয়েছে বিশ্বকাপে ব্যবহৃত এই ঘড়ি গুলিতে। এমন কোন তথ্য নেই যা রেফারিরা পাবে না। বলা হয়েছে, বর্তমানে এই ঘড়ির বাজার মূল্য ৫,৪৮০ ডলার, যা সাড়ে চার লক্ষ টাকা ভারতীয় মূল্যে। যেটি তৈরি ৪৪ মিমি ডায়াল কালো সেরামিক এবং কালো টাইটানিয়ামে। এছাড়াও কাতারের পতাকা আছে স্ট্রাপে। তবে অংশগ্রহণকারী ৩২ টি দেশের মধ্যে কোন রেফারি চাইলে পছন্দমত যে কোন একটি দেশের পতাকা আঁকাতে পারে। অত্যাধুনিক প্রযুক্তিতে এই ঘড়িটি তৈরি করা হয়েছে।

চিপ লাগানো আছে বিভিন্ন ঘড়িতে, যার মধ্যে তথ্য পাঠানো হয়ে থাকে প্রতিমুহূর্তে। অফসাইড বল হলে, গোল লাইন যদি পার হয়ে যায়, কোন নির্দেশ ভারের রেফারি দিতে চাইলে ঘড়ি সাথে সাথে কেঁপে ওঠে। রেফারিও ঘড়ির এই ভাইব্রেট ইঙ্গিত বুঝতে পেরে যায়। এক্ষেত্রে খেলা পরিচালনা করতে রেফারির অনেক সুবিধা হয়। রেফারিদের পাশাপাশি বিশ্বকাপের এই ঘড়ি কাতারে আসা ভিআইপি অতিথিদের উপহার দেওয়া হয়েছে। এবারের বিশ্বকাপে মোট ১০০০টি ঘড়ি স্টক করা হয়েছিল। ইতিমধ্যেই এই ঘড়ি প্রাক্তন ফুটবলার লুইস ফিগো, মার্সেল দেসাইয়ের মতো অনেক অতিথি পেয়েছেন। তবে এই ঘড়ি সাধারণ মানুষের জন্য বাজারে পর্যাপ্ত নয়।