বিশ্বকাপে গোলের হিসেবে এবার মারাদোনার উপরে মেসি, অস্ট্রেলিয়াকে হারিয়ে আর্জেন্টিনা শেষ আটে !!

0
0

এবারও কী ফুটবল ঈশ্বরের বর পুত্রকে বিশ্বকাপ থেকে খালি হাতে ফিরতে হবে, নাকি তার প্রতি অবশেষে সুবিচার হবে? দিয়েগো মারাদোনা অথবা মারিও কেম্পেস হতে পারবেন কী মেসি? এইসব নিয়েই আজকের প্রশ্ন ছিল। বিন আলি স্টেডিয়ামে উত্তর দেওয়ার জন্য ছিল কাতারের আহমেদ। এর আগে আর্জেন্টিনা ৭ বার মুখোমুখি হয়েছিল অস্ট্রেলিয়ার, ৫বার জিতেছে। হেরেছে একটি ম্যাচে আর একটি ম্যাচ ড্র হয়েছে।

তবে কোন প্রতিপক্ষকেই মেসি খাটো করে দেখতে রাজি নন। তিনি জানিয়ে দিয়েছেন,‘অস্ট্রেলিয়ার বিরুদ্ধে ম্যাচটা কঠিন হবে। যে কেউ যেকোনো কাউকেই হারিয়ে দিতে পারে, সমান সুযোগ সবার জন্যই। এমনভাবে আমাদের প্রস্তুতি নিতে হবে আর দশটা ম্যাচে আমরা যেমন ভাবে নিই। শান্ত থাকতে হবে আমাদের, চিন্তা করতে হবে ম্যাচ বাই ম্যাচ।’

ফ্রান্সের কাছে প্রথম ম্যাচে ৪-১ গোলের বড় ব্যবধানে হারের পর ১-০ গোলে সাকারুরা হারিয়েছে তিউনিসিয়া আর ডেনমার্ককে। আলবিসেলেস্তে অর্থাৎ এই ম্যাচে প্রথম থেকেই চাপ দিয়ে আর্জেন্টিনার কাছে গোল তুলে নেওয়া ছিল একমাত্র উদ্দেশ্য। কারণ দুর্বল প্রতিপক্ষ নকআউট খেলায় যদি গোল করা থেকে শক্তিশালী প্রতিপক্ষকে বিরত রাখতে পারে এবং ট্রাইব্রেকারে খেলা চলে যায়, তখন করার কিছুই থাকে না।

দেশের জার্সিতে মেসির ১৬৯ টি ম্যাচ ছিল। মেসির ৯৪ তম গোল আর্জেন্টিনার জার্সিতে। ম্যাক আলিস্টারের পাশ থেকে যেভাবে ছোট্ট জায়গাকে কাজে লাগিয়ে ফিনিশ করে গেলেন সেটা বোধহয় তার পক্ষেই একমাত্র সম্ভব। গোল করলেন বটে মেসি। কিন্তু প্রথম থেকেই তেল খাওয়া মেশিনের মত আর্জেন্টিনা দলটা খেললো।

নিচে নেতৃত্ব দিলেন জায়গা জুড়ে নিকোলাস, আকুনা, মিডফিল্ড অঞ্চলে ডে পল, ফার্নান্ডেজ। উপরের প্রচুর পরিশ্রম করলেন আলভারেজ এবং পাপূ গোমেজ। অন্যদিনের মতোই মেসি রোমিং ফুটবলারের ভূমিকায় ছিলেন। মাঝখানে সরে যাচ্ছিলেন কড়া মার্কিং এড়াতে উইংয়ে। আর্জেন্টিনা দ্বিতীয় গোলটি তুলে নিল ৫৬ মিনিটে।

ডে পল এবং আলভারেজ অস্ট্রেলিয়ার গোলরক্ষককে প্রেস করলেন। গোলরক্ষক ভুল করলেও জুলিয়ান ভুল করেননি বল জালে ঠেলতে। আজ তিনি আবার গোল পেলেন পোল্যান্ড ম্যাচের পর। এরপর আর্জেন্টিনা আরো ভয়ংকর হয়ে উঠল। বেশ কয়েকবার মেসি একাই ড্রিবল করে বেরিয়ে গেলেন।

এই সময় আর্জেন্টিনা শুধু মাঠে ছিল। সাধ্য মতো চেষ্টা করল অস্ট্রেলিয়া, কিন্তু বারবার দুটো দলের মধ্যে কোয়ালিটির পার্থক্য বোঝা যাচ্ছিল। ৭৬ মিনিটে অস্ট্রেলিয়া একটি গোল শোধ করল। আর্জেন্টাইন ডিফেন্ডারের গায়ে লেগে গুডউইনের শট জালে জড়িয়ে যায়। তবে আত্মঘাতী এনজো ফার্নান্ডেজকে গোলটা দেওয়া হল। এরপরে মেসির দুর্দান্ত পাসে লাওটার মার্টিনেজ অবিশ্বাস্য মিস করেন। মেসির একটি দুর্দান্ত প্রচেষ্টা অল্পের জন্য বাইরে চলে যায়। নিজেদের সামর্থ্য অনুযায়ী অস্ট্রেলিয়াও শেষ পর্যন্ত লড়েছে।